Sensors A to Z

Sensor

Author: Shakik Mahmud


Index: What is sensor, Use of sensors, Type of sensors

সেন্সর শব্দটির সাথে আমরা সকলে কম বেশি পরিচিত। বলতে গেলে বর্তমান সময়ে আমাদের চারপাশে ঘিরে রয়েছে অজস্র সেন্সর। আমরা একটু ভালো করে খেয়াল করলেই আমাদের বাড়িতে, অফিসে, গাড়িতে, রাস্তায় এমনকি আমাদের পার্সোনাল ডিভাইস গুলোতেও সেন্সরের কাজ দেখতে পাই। সেন্সর বিভিন্ন ধরনের হয় এবং প্রত্যেকটি সেন্সরের কাজও ব্যতিক্রম ধরনের হয়ে থাকে।অনেক ক্ষেত্রেই সেন্সর আমাদের জীবনকে সহজ করে দিয়েছে।সেন্সর নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার পূর্বে আমরা আগে জেনে নেব সে্ন্সর কি? এবং এর বাস্তব ব্যবহারের উদাহরন।

সোজা কথায়, সেন্সর হলো একধরনের ইলেকট্রনিক়্স সিস্টেম যা এর আশে পাশের পরিবেশের একটি নির্দিষ্ট পরি্বর্তনের (তাপ, চাপ, আর্দ্রতা, আলো, শব্দ ইত্যাদি) জন্য একটি সিগন্যাল বা সাড়া প্রদান করে।সেন্সরের কাজের বাস্তব উদাহরনঃআমরা হয়ত সকলেই অটোপাইলট (autopilot) সিস্টেম সম্পর্কে জানি, না জানলেও সমস্যা নেই। অটোপইলট সিস্টেমযদি বিমানে অন করে দেওয়া হয়, তখন বিমান নিজেই নিজেকে কন্ট্রোল করে, সেক্ষেত্রে আর পাইলটের দরকার পরে না। এখন কথা হলো বিমান নিজেকে কন্ট্রোল করে কিভাবে? আসলে এটি একটি অটোমেশন সিস্টেম যেখানে অনেক গুলো সেন্সর থাকে এবং ভিন্ন ভিন্ন রকমের সেন্সর ভিন্ন ভিন্ন ধরনের কাজ করে থাকে। এখন বিমান যদি নিজেই নিজেকে কন্ট্রোল করতে চায় তাহলে সবার আগে তার কিছু ডেটা লাগবে তার অবস্থান সম্পর্কে, যেমন বিমানটি কত উচ্চতায় আছে, তা আশে পাশে কিছু আছে কি না, কত স্পিডে উড়ছে, আবহাওয়ার অবস্থা ইত্যাদি। এসব ডেটা এনালাইসিস করে বিমানটি তার পথে অগ্রসর হবে। কিন্তু কথা হলো এই ডেটা গুলো বিমান কিভাবে পাচ্ছে? উত্তর হলো সেন্সরের সাহয্যে, এ ক্ষেত্রে এক ধরনের সেন্সর বিমানকে অবগত করছে তার উচ্চতা সম্পর্কে অন্য একধরনের সেন্সর অবগত করছে আবহাওয়া সম্পর্কে ইত্যাদি এবং সব ডেটা এনালাইসিস করে বিমানটি সিদ্ধান্ত নিচ্ছে যে এটি কোন দিকে যাবে।এখন আপনাদের মনে প্রশ্ন জাগতেপারে ডেটা গুলো এনালাইসিস করছে কিভাবে? সোজা উত্তর হলো কম্পিউটারের সাহয্যে কিন্তু বিস্তারিত আলোচনায় মাইক্রোকন্ট্রোলার আর মাইক্রোপ্রসেসরের নাম উঠে আসবে যা আমরা পরবর্তীতে আলোচনা করব।

সেন্সরের ধরনঃ এক্ষেত্রে বিভিন্ন এক্সপার্টগন বিভিন্ন রকম শ্রেনীতে সেন্সর গুলোকে ভাগ করে থাকেন। তবে প্রত্যেকটিই সঠিক ও যুক্তিযুক্ত আমরা এখন এর কয়েকটি ধরন দেখব। প্রথমত সেন্সরকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়- 


i) Active Sensor

ii) Passive Sensor

External Excitation signal বা Power signal এর উপর ভিত্তি করে এদের দু ভাগে ভাগ করা হয়। Active Sensor এর ক্ষেত্রে External Power Signal এর দরকার পরে আউটপুট পাওয়ার জন্য, কিন্তু Passive এর জন্য দরকার পড়ে না। এখানে External Excitation signal বলতে বোঝায় বাহ্যিক কোন উত্তেজনার জন্য কোন সংকেত সৃষ্টি হওয়া।আমরা ইতো্পূর্বে জেনেছি যে নির্দিষ্ট কোন পরিবর্তনের জন্য সেন্সর সাড়া প্রদান করে যাকে আমরা সিগন্যাল বলে অবহিত করছি এবং পরিবর্তনকে উত্তেজনা হিসেবে অবহিত করছি। পরবর্তী ধরনটি বের করা হয়েছে conversion এর উপর ভিত্তি করে অর্থাৎ ইনপুট এবং আউটপুটের উপর। কিছু সাধারণ রূপান্তর বা conversion ঘটনা হ’ল ফোটো ইলেক্ট্রিক, থার্মোইলেক্ট্রিক, তড়িৎ রাসায়নিক, বৈদ্যুতিক চৌম্বক, থার্মোওপটিক ইত্যাদি। চূড়ান্তভাবে sensor কে দুইভাগে ভাগ করা হয়ঃ

i) Analog Sensor

ii) Digital Sensor

Analog সেন্সর Analog Output প্রদান করে অর্থাৎ sensor টি যে পরিমান data পরিমাপ করে প্রায় ওই পরিমান signal প্রেরণ করে। Analog সেন্সরগুলির বিপরীতে Digital Sensor গুলো বিচ্ছিন্ন বা ডিজিটাল ডেট নিয়ে কাজ করে। Digital Sensor এর ডেটা গুলো conversion and transmission এ ব্যবহার করা হয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *